ঘুম

বর্ণমালার ভেতর মাথা তুলছে ভোর
আলোদের অবাধ্য স্পর্শ

বেঁচেথাকাগুলো স্পষ্ট বিন্দুমুখী হলে
শিকড়বাকড় থেকে ধূলো ওড়ে
ধূসরের দিকে যায় গানের খাতারা

এবার প্রথম থেকে লেখা শুরু

চৌহদ্দি পেরিয়ে ওই দূরে
অনতিক্রম্য থেকে ঘষে তুলছি আরম্ভ
আলজিভের মধুমঞ্জরী ছুঁয়ে এঁকে রাখা পটচিত্র
সারি সারি টাঙিয়ে রেখেছি ঘুমের আলগোছে

এ যদি স্বপ্ন হয়, জাগরণে কিবা সুখ বলো


ভবিতব্য

সমস্ত আগামীগুলো আমি জানি

জানি দূরবর্তী অন্ধকারগুলোর ক্রমশই এগিয়ে আসা
সূচনা ও সমাপনের একটিমাত্র স্থিরবিন্দু
জানি বিষ হয়ে ওঠা পেয় জল
আর পুতুলখেলার দিকে দ্রুত বিন্যাস

হাতের মুঠোর কোনো যাদুগান নেই

অবশ্যম্ভাবী সরে যাওয়া জল আর পাড়ের জ্যামিতি
মুছতে মুছতে ঢেউ যায় অন্য নদীতে
শুধু একদিবসের রাজ্যপাটলোভ বেছে নিয়ে
আয়ুরেখা জুড়ে শিকড়বাকড় গাঢ় হয়

ক্ষতমুখে মধু মোম বিন্দু বিন্দু জমে থাকে

আর থাকে শুশ্রুষা

প্রকৃত প্রেমের পাশাপাশি