কবি সুব্রত অগাস্টিন গোমেজ - শত্রুতর বন্ধু... বন্ধুতর শত্রুবরেষু

কে হে তুমি প্রতিবাক্য ছুঁড়ে দিচ্ছ বারবার ওইপার থেকে
প্রতিপদ স্থানাঙ্কে দাঁড়িয়ে আমার?
তোমার তিরের হালকা ঝংকার আর ধনুকের মন্দ-মন্দ জ্যা-নির্ঘোষ
বায়ুর প্রথম স্তরে আলোড়ন তুলেছিল ভোরের বেলায়-
আয়ত-চৌকো, ত্রিকোণ-বর্তুল...

এখন এ অপর বেলায়,
ওইসব শব্দের বুদবুদ বহুগুণিত হয়েই ফেটে পড়ছে
ঠা-ঠা মেঘনাদের ভাষায়-
আচমকা কোনো বোমা ফাটলে
যেমন সহানুভূতিবশে আশেপাশে পুঁতে-রাখা
সব বোমা ফাটতে থাকে এক-এক করে, সেইরূপ...
সেইরূপ বিস্ফোরক সহানুভূতির লীলা
লীলাচ্ছ হে গুপ্ত লীলাকর।

ভিন গোলার্ধের কোনো নাম-না-জানা
মর্কটে-কর্কট-লাগা এক জম্বি-প্রজাতন্ত্র থেকে ছুটে আসছে
মারণজীবাণু-মাখা জং-ধরা একাঘ্নী হারপুন।
পৃথিবীতে এত প্রাণী, তা থুয়ে কেবলই খুঁজে-খুঁজে
আমার দিকেই ধেয়ে আসে
হারপুনের দাঁত-খেঁচা হিংস্র আস্ফালন।

বীজাণুব্যসনে ন্যুব্জ এই নবদ্বার দেহ, এ-ব্যাধিমন্দির, একে
উপলক্ষ করে আর কত ছুঁড়ে দেবে কল্প-ঔষধ, প্রবোধ, প্রতিবাক্যরাশি?
এমনিতেই তোমার জ্ঞানাঙ্কুশের খোঁচা খেয়ে হয়েছি কাহিল
তার ওপর এতসব প্রবোধ, ঔষধকল্প,
এই যে উপর্যুপরি সিমপ্যাথেটিক ডেটোনেশনের খেলা,
উড়াল পাখির ঝাঁকে ছুঁড়ে দেওয়া ভেল্কিজাল,
হারপুনের ভানুমতি খেল,
জ্ঞেয় দিয়ে অজ্ঞেয় ধরার লীলা...
অসহ, অসহ্য লাগছে সব
কিন্তু কখনোই বার্তা পাঠাব না থামাতে এসব।

থেকে-থেকে অবমাননার মতো গায়ে এসে বেঁধে
বিরামচিহ্নিত ধোঁয়াচিৎকার, তর্জন আর কেরদানিধ্বনি।
প্রত্যুত্তরে, পাঠাই তোমার প্রতি উচ্চকিত যত
ভাবনা আমার।
কিন্তু কী যেন কী ঘটে যায়
আমারই সশব্দ ভাবনারা হায়
আমাকেই ফাঁকি দিয়ে নিঃশব্দে মিলায়
হোগলা আর কাঁকড়াভরা হিজিবিজি জলায়, জংলায়।

জ্বরান্তক বটিকা পাঠাই,
পাল্টা পাঠাও হে তুমি পাতলা সিরাপ।
অর্শে যে সিরাপ, মধুমেহতেও তা-ই...
বড় আতান্তরে পড়ি বারবার।

আসলে কে হে তুমি? নেপথ্যে, বহুদূর যবনিকার আড়াল থেকে
বারবার হেঁকে যাচ্ছ সেই একই হিতেচ্ছা হিমেল...
“পূতি ঘেঁটে ঘেঁটে পূত হয়ে ওঠ
পুঁথি ঘেঁটে ঘেঁটে হয়ে যা রে তুই ত্রিপণ্ড পণ্ডিত
ময়লা-ঘাঁটা কীট হয়ে কাটিয়ে দে ঝকঝকে একটি জীবন।”

এক ঘোড়া একাই ধারণ করে তিন হর্স-পাওয়ার-
আমার সে-তুফানাশ্ব একদা ছুটত
মত্ত হারিকেনের উচিত ঘূর্ণি তুলে।
আজ অশ্বধর্মে মতিগতিহীন আমার সে-ঘোড়া
ব্যাটারি-ফিউজ হয়ে পড়ে আছে আস্তাবলে।

অন্তিম-গাঁজলা-ওঠা প্রিয়তম সে-ঘোড়ার
নিবিড় নিতম্বে কষে চাবুক দাগিয়ে
জলবিছুটির পাতা ঘষে দিয়ে গুহ্যপ্রদেশে, উঠিয়ে নিয়ে
যাব ঠিকই রিচার্জ করাতে।
জিল্লিক পাড়তে পাড়তে সোজা ছুটে যাবে
জিল্লিকপাড়ার সেই বেঘোর ব্যাটারি-ময়দানে।

বুস্ট চার্জ দেব
জং-পড়া টেংরি আর খুরে খুরে দেব কেরাটিন ট্রিটমেন্ট।
নিজের মেরুদণ্ডেও সেরে নেব টুকিটাকি মেরামত, রাংঝালাই।
তারপর, চূড়ান্ত চার্জিত ওই ঘোড়াকে ছোটাব
তুফানতরঙ্গ তুলে তোমার দ্রাঘিমা বরাবর।

পথিমধ্যে বাড়বাগ্নি, জলে ও জঙ্গলে, সাগরে, ভূধরে, গিরিকন্দরে...
বারুদবাতাসে ঠাসা আবহবলয়-
তারই মধ্য দিয়ে ক্ষিপ্র চৌকশ চকমকি ঠুকতে ঠুকতে ছুটতে থাকব আর
আমার সে-তুফানাশ্বের উড়তে-থাকা ধাবন্ত ধারালো
কেশরের ঘষা-লাগা-মাত্র
হাওয়ায় লাফিয়ে উঠবে লকলকে রোহিতাশ্বের শিখা।

পথে ঘনঘন-রং-বদলানো গোয়েন্দা গিরগিটি, কুতক্ষক,
কাঁটার সাঁজোয়া পরে হঠাৎ হাজির হওয়া শজারুবাহিনী,
জলে তিমি, তিমিঙ্গিল, ডাঙায় খাটাশ,
তিরিক্ষিমেজাজ কৃশ কৃকলাশ, বৃশ্চিকের ক্যামুফ্লাজ,
মৌমাছির মাধুকরী, পায়রার কপোতবৃত্তি আর
উভচর ঘোড়েলের বেতালা ঘোড়েলকাণ্ড ঠেলে ঠেলে
উজিয়ে এগিয়ে যেতে হবে, তা-ও জানি...

পর্বতের ভাঁজ থেকে খসে গিয়ে অভিযাত্রীদল
টুপটাপ ঝরে পড়বে সরু গিরিপথ-দিয়ে-চলা চোরাই মাল আর
মালের কারবারিবাহী খচ্চরের কাফেলার ওপর।

পুলসেরাতের মতো সরু পুল- তার ওপরে
ভল্ল-হাতে নাঙ্গা পুলিশের মতো সার-সার দাঁড়ানো
একচক্ষু হিংস্র ঊনমানব, বামনপ্রজাতির।
তাদের কিনার দিয়ে তুরন্ত তাড়িয়ে
উড়িয়ে নিয়ে যাব ঘোড়াকে আমার।
ছুটতে ছুটতেই ছোঁ মেরে উঠিয়ে নেব
দু-একটি শস্ত্রপাণি বিচ্ছুটে বামন।

ওদিকে নটখটে কিছু হনুমান নিজ-নিজ লেজে
আগুন লাগিয়ে নিয়ে ডাল থেকে ডালে
চিল্লাতে চিল্লাতে ধোঁয়া-মাখা হুতাশন দিয়ে যাবে ভিমরুলের চাকে।
লেগে যাবে মহা-ভজঘট, শুরু হবে ভেল্কিনাচ
উল্লুক-ভল্লুক-সিংহ-শুয ়োর-তরক্ষু-অধ্যুষিত ওই জঙ্গল-সাম্রাজ্যে।
জাঁকান্দানি শুরু হয়ে যাবে রীতিমতো
পরাক্রান্ত স্বরাট সিংহের একচ্ছত্র পরাক্রমে।

বেলাশেষে অ্যাশফল্টের ঘোর ধোঁয়াভস্মের মতন
মিশিকৃষ্ণ অমানিশা নামবে এক আয়ামে জাহেলিয়ার।
শতশত চেরাজিভ সরীসৃপ-চমকানো আঁধার আকাশ...
ছিঁড়ে-যায়-যায়-প্রায ় শনি ও রবির মাঝখানকার
সঘন বুনটবদ্ধ সুদীর্ঘ সেলাই...

অবশ্যই দেখা হবে একদিন। এবং অচিরেই।
তারপর লড়াই হবে মুখোমুখি সেয়ানে সেয়ান...

আড়াই প্যাঁচের চালে, গণেশ-উল্টানো গ্যাংনাম তালে
ফণা-তোলা ফানাফিল্লা ছন্দে, ফোস্কা-ফোটা অশ্বগন্ধে
তিন্তিড়ি গাছে জোনাকির ঝাঁকে তিড়িংবিড়িং ভেলকির ফাঁকে
দ্যাখো-না হে খালি, বিতিকিচ্ছিরি
কী-কী ঘটে আর, মহা-ধুন্ধুমার ধুলান্ধকারে আ-কারে ই-কারে
হ্রস্ব-ল্লির উল্টাপাল্টা উল্লম্ফনে
ফাটাফাটি আর মারকাটারি শর্ট-সার্কিটে
তামাশা খামোশ-করা পাল্টা-তামাশায়
সার্কাস পাল্টে-দেওয়া অ্যান্টিসার্কাসে
গজব-জাগানো কেয়ামত যেন ব্লাডার-ফাটানো গেণ্ডুয়া খেলা...
দ্যাখো-না হে খালি,
কী-কী ঘটে আর মহা-ধুন্ধুমার ধুলান্ধকারে আকারে বিকারে
হ্রস্ব-ল্লির চিল্লাপাল্লা নাচনে-কুঁদনে
ব্লাডার-ফাটানো গেণ্ডুয়া খেলা...দুর্যোধনে ধৃতরাষ্ট্রে...
খুন ও জখম শকুন শকুনি অশ্বত্থামা...
তোমাদের ওই আরাম-আরাম তুলতুলতুলে তাসের রাজ্যে
ঘটিয়ে দেবই মৌলিক হাঙ্গামা...

দেখো, বৃথা যেন নাহি যায় কিছুতেই
আমাদের অনচ্ছ অথচ উচ্চ-ভোল্টের সমরনীতি, যুদ্ধরঙ্গ
এবং এ জঙ্গসমীকরণে সুমেরুপক্ষ হও যদি তুমি
আমি হব নিশ্চিত বিষুবপার্শ্ব তবে।

যুযুধান আমরা দু-পক্ষ মিলে, পরস্পরে,
মেটাব গায়ের ঝাল গরমাগরম
কেবলই ঘটিয়ে যাব লাগাতার
প্রভূত ক্ষয়ক্ষতি আর
বলাই বাহুল্য, সব ক্ষতিই অবধারিতভাবে কোল্যাটারাল...