বহু ভালো ব্লগ ও ওয়েবজিন এই সময়ের বাংলা ভাষা-সাহিত্য নিয়ে কাজ করছে। মানুষও ক্রমেই আন্তর্জালে অভ্যস্ত হয়ে পড়ছেন। অচিরেই তারা পাঠক হয়ে উঠবেন।
রোহণ কলকাতায় এলে আমার সাথে দেখা হলো। মনে মনে স্থির করেছিলাম, এত সম্ভাবনা সত্ত্বেও জার্নির ওয়েব কেন নিয়মিত প্রকাশ পাচ্ছে না! রোহণের সাথে কথা বলব। ও বলল, নিয়মিত করতে হলে বিষয় ও গুনমান নির্দিষ্ট রেখে লেখা পরিমাণগতভাবে কমাতে হবে। প্রতি মাসের ১ তারিখের মধ্যে সমস্ত কনটেন্ট মেইল করতে হবে। সব লেখা ইউনিকোডে লিখতে হবে, প্রুফ প্রাথমিক ভাবে তোমাকেই দেখতে হবে। প্রচ্ছদ তুমি ঠিক করবে, মাঝে মাঝে আমিও। বাকি সব আমার দায়িত্ব, আর হ্যাঁ, এবার থেকে স্প্যামের ব্যাপারটা আমি নিশ্চিত করব।

ধায় যেন মোর সকলি ইচ্ছে যে আর একবার চেষ্টা করে দেখি। জার্নির পরিবারটা ভেঙে ঠিক যায় নি, ছড়িয়ে ছিটিয়ে গেছে।
অর্জুনকে বললাম, ‘ফিরে পড়া’ একটা কলম রাখতে চাই। কবিতা ও/বা গদ্যের। ১২টা সংখ্যার দায়িত্ব নিতে হবে।
ও সঙ্গে সঙ্গে জানাল, হ্যাঁ। বলল, দুটোই হবে।
অতঃপর জয়দীপকে (দাম) বললাম, ফিল্ম অ্যান্ড পোয়েট্রি, তোর বিভাগ। প্রথমে রাজী হলেও পরে কেন যেন মাফ চেয়ে নিল। ও তো এরকম নয়। একটা সমস্যা হচ্ছে। অতনু (সিংহ)-র সাথে কথা হয়েছে, ও দায়িত্ব নিতে রাজী। আরও কেউ, জানাবেন।
পোস্ট-পার্টাম অর্জুন লিখেছে। আর Ode to the Last Leaf-এ শুভঙ্কর দাশ।
এছাড়াও ওপারের জানালা। নিয়মিত বিভাগ। সাক্ষাৎকারও।
শ্রেয়সী ( গঙ্গোপাধ্যায়)-র ছবি কবে নিয়েছিলাম! এবার প্রচ্ছদে ব্যবহার করতে পারব।
শংকরদার আড্ডা-আড্ডি-র আলাদা করে একটা বিভাগ, ভাবা যায়!
আর গদ্য ছাড়াও কবিতার মাধবীমূলক রইল।
যেন অন্য রকম কাজ হয়।

সহায় পাঠক।

রাজর্ষি