যাকে খুঁজে পাচ্ছি না, অতিপরিচিত জন, কোথাও তো আছে!
আছে যে, জানি তা, আছে উপরন্তু এদেশেই
খুব কাছেপিঠে ওর থাকা টের পাই। ও আছে,ওদের মধ্যে ‘ওত্ব’ বজায়ে,
যাকে খুঁজছি
সেই আছে,আছেই এদেশে


যারা হাঁটতে শিখেছো,তারা দৌড়াও…
যারা দৌড়াতে পারছো,তোমরা সাঁতার কাটো;
যারা সাঁতার শিখেছো,ওঠো পর্বতচূড়ায়… তারপর
ঐদিকে শূণ্যে লাফাও।
                               কেউ কাঠ কুড়ায়,কেউ মাইন পুঁতে আসে।
প্রতি পরিবারের ভিতরে গান গাইছেন পড়শিরা,
                                                             ঘরেঘরে পড়শিসঙ্গীত।


মানুষ যখন,কোনোদিন পাগল হয়ে যেতেই পারে
আমরা তৈরীই রেখেছি পাগলাগারদ।
যারা উড়তে চায় তাদের বিমান,আর
ভাসতে চাইলে নৌকা প্রস্তুত।
মানুষ যখন,যে কোনো মুহুর্তেই সে ধর্ষণ করতেই পারে,
আমরাও কঠোর করছি আইন।
কিছু একটা জুড়তে যাবো,অমনি আঠা জল হয়ে যায়।
জল দিয়েই জুড়ে দিলাম পাড়।
জলার সাথে জুড়ে দিলাম সাগর।
আমাকে ধাক্কানিরোধক একটা উপায় বলুন তো,
সারাক্ষণ কেউ ধাক্কাচ্ছে আমাকে।
ভীষন ঝাঁকুনি টের পাই,ফেলে দিতে পারে,
না ফেল্লেও পড়ে যেতে পারি..ডাক্তার কেমন দেখি,
পতননিরোধক একটা উপায় বলুন।


সবদিক পায়ে এসে পড়েছে,কোনোদিকেই যাবো না বলা যায়!
পা থেকেই সবদিকে রাস্তা গিয়েছে।
পা থেকে পা,
যে যেখানে আছো
আমার পা থেকে সব রাস্তা সবদিক হয়ে
তোমাদেরই ছুঁয়েছে পায়েপায়ে।