এরপরের কথা বা কাহিনীতে আর কোন চৈত্র লেগে নেই
যতটুকু নিস্পৃহ বালিতে ধূলোতে,
আর অস্বপ্ন হওয়ার কথা
এমনকি জন্মপারের স্মৃতিহীনতাও মুছে ফেলি
ঘুমপাড়ানি গান আঁকতে সাতকাহন
কাঁটা ওপড়ানোর ফাঁকে
একটা একটা করে তুলে ফেলছে সামুদ্রিক আঁশ

অভিপ্রেতের বিপরীত বিন্দু থেকে
এই যে গড়িয়ে নামছে লম্বা রানওয়ে
প্রকান্ড ধাক্কায় চুরমার ছায়া জড়ো করার খেলা
এখন জাগিয়ে রাখবে মৃত্যুদিনের গল্প
যা কেবল লেখা হতে থাকে রাত্রিকালীন নৈঃশব্দে

ভঙ্গিল রেখার জ্যামিতি নস্যাৎ হয়ে উঠতে থাকলে
আমি খুঁজি রঙিন দেওয়ালের আলোগুঁড়ো

সমস্ত পাপের বোঝা মাথা পেতে হাঁটি
একা, পরিধি বরাবর