জন্ম ১৯৯১,উল্কার প্রথম কাব্যগ্রন্থ “বিজিটোন”। আমরা পাল্টাচ্ছি সময়ের সঙ্গে শব্দভিত্তিক, লেখকের কলমে আয়না খুঁজছি... উল্কার বেশ কিছু কবিতায় সময় সমসাময়িককে জাপটে ধরে বেরিয়ে এসেছে। সিরিজ কবিতা হিসাবে ১৪টি ধারাবাহিক ধাপে নিজস্ব আঙ্গিকে কবিতাগুলো পরিস্ফুট। সিরিজের প্রথম কবিতায় “পাকা ধানে মই পড়তেই/ সরল হয়ে গেল এক অনুশীলনী/ সিঁড়ি ভাঙ্গা” --- সময়ের বন্ধনকে সম্পৃক্ত করার চেষ্টা ধরা পড়ে লাইনগুলোতে। আবার সিরিজের ৫নং কবিতায় ক্রমাগত হয়ে যাওয়া অন্যায়ের সঙ্গে আপোসকে শ্লাঘার মাধ্যমে পাওয়া যায়, যেমন— “মোমবাতি গ্রিটিংস কার্ড/ আর অনামন্ত্রিত ওরা...” “রাজধানী লোকালের ড্রাইভার জানতেন/ কলকাতায় আজও বৃষ্টি নামবে না”। শব্দের ব্যবহারকে একরকম দ্বিমাত্রিক ব্যঞ্জনায় প্রয়োগেও দেখা যায়... ৬নং সিরিজ কবিতায়-“কাল নখের আলে ডিম পাড়বে/স্তন উপায়ী তিমির দল...” আবার ৮নং সিরিজ কবিতায় মেকী রং-এর বিলাসিতাকে তুলে এনেছেন উল্কা “সূর্য আজ নপুংশক/লাদাখে বৃষ্টির পর/ বনলতাকে সিস্টার জন্ম দিলেন তরুণকবি”। আবার আসি ১০নং সিরিজ কবিতায় যেখানে স্বতঃস্ফূর্তভাবে নার্সিসিজম-এর প্রকাশ কবিতাটিকে অভিনব করে তুলেছে---“ছাত্রী নিবাসের উপোসি মশারির ফাঁসে তখন/মাস ফুরনোর অপেক্ষা করছে সে...”। উল্কার কবিতার মধ্যে কখনও কখনও স্তাবকতার বিরুদ্ধে কটাক্ষ ফুটে উঠেছে যেমন যা নিয়ে আমরা নিয়ত কপচাচ্ছি অথচ তার মধ্যেই সাদরে পুষছি ভূত---এরকম প্রসঙ্গে শেষ সিরিজ কবিতার কিছু লাইন— “স্কুলগার্ল ঝুঁটির রিবন খুলে দেয় ই ভি এস ঝিম/ক্লোরোফিলে চুবে আছে একটি ভাওয়েল/পঞ্চ ব্যঞ্জন রাঁধা পড়ে আছে ইগলুর কোনে...”
বইয়ের প্রচ্ছদ মোটের ওপর ভালোই বলা যায়... কবিতার ব্যাপ্তিকে ধরে রাখার আভাস পাওয়া যায়। উল্কার প্রথম বই হিসাবে ম্যাচিওর কবিতাকেই আমরা এই কাব্যগ্রন্থে পেয়েছি। আশা করি ভবিষ্যতে যথাযথ মোটিভেশন নিয়ে আমরা আরো ভালো কবিতা উল্কার কাছ থেকে পড়ার সুযোগ পাব। উল্কার আগামীকে অনেক শুভেচ্ছা।

বিজিটোন
উল্কা
প্রথম প্রকাশ - কোলকাতা বইমেলা ২০১৪
প্রচ্ছদ - প্রবীর মণ্ডল
মূল্য - ২০/-