অজুহাতের মত একজোড়া অজুপা দরকার, আর সাফাই দেওয়া যাচ্ছে না। নিয়মিত অনিয়ম হয়ে চলেছে, অথচ, ধারাবাহিক যারা লিখছেন তারা সময় মত লেখা দিচ্ছেন। ওপারের জানালা দিয়ে দেওয়া নেওয়া অব্যাহত। তবুও...
. কবিতার ক্ষেত্রে 'কবিতা' পাওয়ার সমস্যা হচ্ছে
. এতগুলো বিভাগ মিলিয়ে যা লেখা থাকছে, তার প্রকৃত পাঠের সময় কোন ভাবেই এক মাস হতে পারে না
. প্রত্যেক লেখার নিচে মতামতের স্থান শূন্য পড়ে থাকছে যা সংশ্লিষ্ট কবি/লেখকের কাছে অপমানজনক।
জার্নির পাঠক দাবি জানাচ্ছেন প্রচারের জন্য। কিন্ত প্রচার মানে তো রেগুলার রিমাইন্ডার নয়, দৃষ্টি আকষর্ণীয় অসভ্যতা নয়, বিজ্ঞাপন বা বিপণনীয় ক্যাচলাইন দেওয়া নয়। এটা তো সাহিত্য। পোস্টাপিসের রেকারিং ডিপোসিটও নয়। তবে?
তবে একটা তবে আছে। সবই তো পরীক্ষা ও নিরীক্ষাধীন। আমরা যারা লিটলম্যাগ ও ওয়েবম্যাগ করি, মাতৃভাষা দিবসের অংগীকার, মনে আছে তো?
অতএব, একটু অন্য পর্যায়ের জার্নি।
দ্বিমাসিক, মতামতের সিঙ্গল উইন্ডো, কবিতা বিভাগের আমন্ত্রিত সম্পাদক, এ সঙ্খ্যায় জয়শীলা, আগামীতে আরো কিছু ভরের নিত্যতা সূত্র।
আসলে আমাদের কোন ড্যামেজ নেই তাই ড্যামেজ কন্ট্রোলও নেই। পাঠক আছে কিন্তু, সীমিত। সেইসব জয়তু পাঠক। গুগুল যার একটা ধারণা দেবে।
শমিতের ভিসপোর কথা নিশ্চিত জানেন, এবার দেখুন ওর মো.ভিস.পো.-র কাজ। পরপর কয়েকটা, বেশ কয়েকটা। এছাড়াও ওপারের জানালা থেকে শিমুলের গদ্য, আফসানার অনূদিত গল্প আর নিয়মিত বিভাগে অর্জুন, নীলাব্জ, দেবাঞ্জন -- সব মিলিয়ে উৎসব, উৎসব। রীতিমত উৎসব।

অর্থাৎ বধ আর বোধন দুটোই, তবে ওই একটা তবে আছে যে!
সে বিশ্বকাপ ফুটবল আর গাজায় মার্কিন মদতপুষ্ট ইস্রায়েলি হামলা যাই হোক, দুটোই 'উৎসব' আর ফেবু-র কল্যাণে আন্তর্জাতিক বাঙ্গালী তার নির্বোধ বাল ও খিল্য প্রকাশ করবেই! যেন তেন প্রকারেণ...

জারা হাটকে ইয়ার্...

পুনশ্চঃ সৌপ্তিক তার জীবনযাত্রাকে শাণিত করছে, চলচ্ছবি উঠে এলো বলে!