কর্নাটক রাজ্যের নীলগিরি বায়োস্ফিয়ারের অন্তর্গত ‘নাগারহোলে’ জঙ্গলমহল। তারই একাংশ জুড়ে ‘কাবিনি ওয়াইল্ড লাইফ স্যাঙ্কচুয়ারি’। একসময়ে ব্রিটিশদের প্রিয় শিকারক্ষেত্র ছিল। এর জঙ্গলের ভেতরটা যেমন রহস্যময় সুন্দর, তেমনই কাবিনি নদীতে মার্চ মাসে বোট সাফারি। কলকাতা থেকে সকালের ইন্ডিগো ফ্লাইটে দুপুরে বেঙ্গালুরু। তারপর এয়ারপোর্ট থেকে ২৫০ কিমি সড়কপথে, রেনো ডাস্টার গাড়িতে, আমরা দুজন। যখন পৌঁছলাম তখন কাবিনি রিভার লজে সূর্য অস্ত যাচ্ছে। জঙ্গলের গা ঘেঁষে দারুণ সুন্দর ক্যাম্পাস ওদের। বছরের এই সময়ে, এই বসন্ত কালে, পত্রমোচী বনের (ড্রাই ডেসিডুয়াস ফরেস্ট) সৌন্দর্য আমাদের বিহ্বল করে। ভোরের হিম হাওয়ায় যাঁরা এইসব জঙ্গলে জীপে চড়ে সাফারিতে গিয়েছেন, তাঁরা জানেন এর স্বর্গীয় শিহরণ। জঙ্গল সাফারিতে যেতে হয় ভোরবেলা, অথবা পড়ন্ত বিকেলে। আমরা দুবেলাতেই গিয়েছিলাম। ওই সময়েই বন্যপ্রাণীরা জল খেতে আসে নদীতীরে, হ্রদে, অথবা জঙ্গলের ভেতরের ছোট ছোট পুকুর বা ওয়াটার-হোলে। আমাদের বাংলোর পাশ দিয়ে বয়ে গেছে বিখ্যাত কাবিনি নদী। এখানে সস্ত্রীক আমরা দুজনই শুধু বাঙালি। প্রচুর বিদেশী এসেছেন কয়েকদিন ছুটি কাটাতে, তাঁদের হাতে হাতে ঢাউস সব ক্যামেরা। অনেকেই প্রকৃতিবিদ, বন্যপ্রাণবিশারদ। কেউ কেউ কাজ করছেন বিবিসি বা ন্যাট জিও-র হয়ে। কাবিনি ক্যাম্পাসে সবুজ জাল দিয়ে ঘেরা ডাইনিং হলে দেখা হয় সকলের সাথে। শান্ত সমাহিত আরণ্যক আবহ। সেখানে চারবেলা পনেরো-ষোলো রকম খাবারের বুফে আয়োজন। স্যুপ, স্যালাড, গ্রিল, বার-বি-কিউ, সুইট ডিশ, সবই রকমারি। সন্ধেবেলা ওয়াইল্ড লাইফ নিয়ে ফিল্ম শো। -এত সুন্দর একটা প্রপার্টি, এই সমস্ত ব্যবস্থাপনা, কর্নাটক রাজ্যসরকার কর্তৃক রচিত, পরিচালিত। ভাবা যায় ! প্রত্যেকটি কর্মী এত বিনয়ী, আন্তরিক, আপ্রাণ ! (এমনটা যদি আমাদের রাজ্যের পর্যটন কেন্দ্রগুলোয় কোনও দিন করা যেত ! না, এসব ভেবে আর বিমর্ষ হতে চাই না।)

এদেরই ব্যবস্থাপনায় প্রতিদিন ভোরে আর বিকেলে জীপে চড়ে তিন-তিন ছ’ঘণ্টার দারুণ সুন্দর জঙ্গল সাফারি। আমরা তিনটে জঙ্গল সাফারি আর একটা বোট সাফারি করেছিলাম। আমাকে তাজ্জব করে-- কীভাবে, কোন বিশেষ ক্ষমতায়, চলন্ত জীপ থেকে ড্রাইভার বা গাইড (এঁরা ট্রেইন্ড ‘ন্যাচারালিস্ট’) জঙ্গলের গভীরে ডালপালার আড়ালে কোথাও এক ঝলকে কোনও জানোয়ারের এক চিলতে ঠিক দেখতে পান, অথবা কোনও উঁচু গাছের মগডালে কোথায় কোন দুর্লভ পাখি বসে আছে ! এবং সঙ্গে সঙ্গেই গাড়ি থামিয়েছেন ঠিক স্পটে। আর বাঘের খোঁজ পেতে গেলে মাটিতে পাগমার্ক ছাড়াও, গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ করে চুপ করে কান পেতে শুনতে হয় কাছে-দূরে কোথাও কোনও ‘কল’ শোনা যাচ্ছে কিনা। বাঘকে কাছেপিঠে দেখলেই এই ‘কল’ দিয়ে সতর্ক করে বার্কিং ডিয়ার, লেঙ্গুর, ময়ূর ইত্যাদি প্রাণীরা। আমরাও একদিন বার্কিং ডিয়ারের ‘কল’ শুনে অনেকক্ষণ অপেক্ষা করেছিলাম, তবে বাঘের দেখা পাইনি। যেদিন সত্যিই দেখা পেলাম, সেদিন কোনও ‘কল’ ছিলনা, শুধু জীপ-রাস্তায় পাগমার্ক ছিল অনেক দূর অব্দি, ক্রমে তা জঙ্গলের গভীরে, শুঁড়িপথে। তবে জঙ্গলের মধ্যে সবচেয়ে হিংস্র হচ্ছে বুনো কুকুর, বা ঢোল (ওয়াইল্ড ডগ)। এরা দলবদ্ধ হয়ে ঘোরে।

এখান থেকে দূরে উজানে নদীর ওপরে বাঁধ দেওয়া হয়েছে ; কাবেরি ড্যাম। নদীতে  বাঁধ দেওয়ার ফলে বাঁধের পেছনের বিস্তীর্ণ অঞ্চল জলে প্লাবিত হয়ে গেছে। ডুবে গেছে অনেকটা জঙ্গল। এই বিশাল ব্যাকওয়াটার এখন এক দারুণ সুন্দর পাখিরালয়। এখানেই আমাদের ‘বোট সাফারি’। জলের মধ্যে লুপ্ত জঙ্গলের স্মৃতি নিয়ে মাঝে মাঝে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে আছে নিস্পত্র বৃক্ষশরীর ; জলপাখিরা আশ্রয় নিয়েছে সেখানেই। নদীর দুই পাড় ধরে, জঙ্গল শুরু হওয়ার আগে, যে সংকীর্ণ সমতলভূমি, সেখানে নির্জনে গিজগিজ করছে কত শত প্রাণী। ক্যামেরায় একই ফ্রেমে ধরা পড়েছে হাতি, হরিণ, শম্বর, কুমির ! এমনটা আর কোথাও আমি দেখিনি। কত রকমের জলপাখি—মাছরাঙা, নীলকন্ঠ, সার্পেন্ট ঈগল, হিরন, ইগ্রেট, পেন্টেড স্টর্ক, খুব সুন্দর হুপো পাখি, স্নেক বার্ড, করমোরান্ট, ব্ল্যাক আইবিস, স্যান্ডপাইপার, ল্যাপউইং—আরও কত এক্সোটিক পাখিরা। যাঁরা পাখি চেনেন, তাঁরা ছবি দেখে চিনে নিতে পারবেন।

এখানে আমার ক্যামেরায় তোলা কিছু ছবি দিলাম ; অপার অরণ্যপ্রকৃতির ছবি, বন্যপ্রাণের ছবি, নৌকাবিহার আর অজস্র জলপাখিদের ছবি। তবে আমাকে মুগ্ধ করেছে গাছ। গাছের ছবি তুলে তুলে আর আশ মেটে না। এই অরণ্যপ্রকৃতির মধ্যে দেখা হল কত কত গাছের মৃত্যু। বার্দ্ধক্যজনিত, শান্ত, স্বাভাবিক, শিল্পীত। অসম্ভব সুন্দর সেইসব বৃক্ষের শব। শিকড়বাকড় উপড়ে টানটান শুয়ে আছে মাটিতে, চিরবিশ্রামে। নিস্পত্র, অথচ অম্লান। সারি সারি সাজানো পড়ে আছে নির্জন অরণ্যের গভীরে, ভোরের আধো কুয়াশায়। এত রূপময় সমর্পন ! এত তার নিঃশব্দ সঙ্গীত। কোনও কথ্য ভাষা, কোনও লিখিত অক্ষর, কোনও শব্দরূপ তাকে প্রকাশ করতে পারে না। একমাত্র আলোই পারে তাকে প্রকাশ করতে। সূর্যালোক! এই আলোই কবিশ্রেষ্ঠ।


 

Kabini tour 1

Kabini tour 2

Kabini tour 3

Kabini tour 4

Kabini tour 5

Kabini tour 6

Kabini tour 7

Kabini tour 8

Kabini tour 9

Kabini tour 10

Kabini tour 11

Kabini tour 12

Kabini tour 13

Kabini tour 14

Kabini tour 15

Kabini tour 16